কুমিল্লায় সন্ত্রাসীদের গুলিতে সিটি কর্পোরেশন কাউন্সিলর সৈয়দ মোঃ সোহেলসহ নিহত ২

অপরাধ

এম শাহীন আলম :
কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন এর কাউন্সিলর সৈয়দ মোঃ সোহেল সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত হয়েছেন। একই সাথে তার ঘনিষ্ঠ সহচর আওয়ামী লীগ নেতা হরিপদ সাহাও গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয়েছেন আরও ৪-৫ জন।

আজ সোমবার বিকালে পৌণে ৫টার দিকে নগরীর পাথুরীয়াপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত কাউন্সিলর সৈয়দ মো: সোহেল (৪৮) ১৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন। তিনি পাথুরীয়াপাড়ার সৈয়দ শাহজাহানের ছেলে।

নিহত হরিপদ সাহার (৫৫) নগরীর ১৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সদস্য ছিলেন। তার বাড়ী নবগ্রাম এলাকায়।

স্থানীয় সুত্রে জানায়, সোমবার বিকালে কাউন্সিলর সোহেল নিজ অফিসে বসে রাজনৈতিক কর্মীদেরকে নিয়ে একটি বৈঠক করছিলেন। এসময় ৪-৫টি মোটরসাইকেলযোগে ৭-৮ জন সন্ত্রাসী কাউন্সিলরকে লক্ষ্য করে এলোপাথাড়ি গুলি ছুড়ে।

এতে কাউন্সিলরের পেটে, বুকে এবং মাথায় তিনটি এবং হরিপদ সাহার পেটে এবং বুকে দুটি গুলিবিদ্ধ হয়।

এলোপাথাড়ি গুলিতে কাউন্সিলরের সহযোগী রিজু (২৩), জুয়েল (৪০) ও রাসেল (৩২) সদস্য মো: বাদল (২৮) এবং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক মো: সোহেল চৌধুরী (৩৮) আহত হয়।

এ সময় আশপাশের লোকজন আহতদেরকে উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সন্ধ্যা ৬টার দিকে কাউন্সিলর সৈয়দ মো: সোহেল এবং হরিপদ সাহা মারা যান। অন্যরা চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

১৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হানিফ মিয়া জানান, এলাকায় অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের বিরোধিতা করে আসছিলেন কাউন্সিলর সোহেল। এ নিয়ে পূর্ব শত্রুতার জেরে সন্ত্রাসীরা এ হামলা চালায়।

সন্ত্রাসীদের গুলিতে কাউন্সিলর সৈয়দ মো: সোহেলসহ দুজন নিহত হওয়ার কথা স্বীকার করে কোতোয়ালী মডেল থানার ওসি আনোয়ারুল আজিম বলেন, আমরা এ ঘটনায় জড়িত সন্ত্রাসীদেরকে গ্রেফতার করতে অভিযান চালিয়ে যাচ্ছি।

কুমিল্লার পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ জানান, এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শহরে যাতে অস্থিতিশীল পরিবেশ না হতে পারে সেজন্যে শহরের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে আমরা তৎপর রয়েছি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।