আশুলিয়ার আউকপাড়ায় কেয়ারটেকার কর্তৃক মালিককে হুমকি, বসতবাড়ি-খামার জবর দখলের চেষ্টা

অপরাধ

আশুলিয়া প্রতিনিধি :
আশুলিয়ার আউকপাড়ার জিপার গলিতে মর্তুজা সরকার নামের এক জমির মালিককে তার সম্পত্তি জবর দখলের অপচেষ্টায় তারই বাড়ীর কেয়ারটেকার মাসুদ হাওলাদার দল বল নিয়ে পথরোধ করে গালিগালাজ, নানা ধরনের ভয়ভীতি ও প্রাণ নাশের হুমকি ধামকি প্রদর্শন করেছে।
সূত্র হতে জানা যায়ঃ আউকপাড়া মৌজাস্থিত আর এস খতিয়ান নং ২২, আর,এস দাগ নং ২৭৮ হতে ৩৭.১২ শতাংশ সরকারী জমির লীজ সূত্রে মালিক মর্তুজা সরকার। তিনি বাংলা ১৪২৪ সন হইতে উক্ত জমিতে বসতবাড়ী, দোকান ঘর ও ছাগল- ভেঁড়ার খামার করে ভোগ দখলে আছেন। দীর্ঘদিন যাবৎ নানা ভয়ভীতি প্রদর্শন সহ প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে জমি ও বাড়ি দখলের পাঁয়তারা করছে উক্ত বাড়ির কেয়ারটেকার। আরও জানা যায়ঃ ভূমি মন্ত্রনালয়ের অধীন ভূমি সংস্কার বোর্ডের কোট অব ওয়ার্ডস ঢাকা নবাব এস্টেট হতে লীজকৃত
উক্ত বাড়িটি সন্রাসী বাহিনী দিয়ে জবর দখলের পাঁয়তারা কারী বাড়ির কেয়ারটের মাসুদ হাওলাদার (৪৬)

উক্ত বাড়ির মালিক মর্তুজা সরকার জানানঃ আমার উক্ত লীজকৃত জমিতে নির্মিত বসত- বাড়ি, দোকান পাট ও খামারে রক্ষিত (২৮)টি ছাগল ও ভেঁড়ার দেখাশুনার জন্য মাসুদ হাওলাদার (৪৬) কে কেয়ারটেকার হিসেবে রাখি। মাসুদ হাওলাদার বিভিন্ন অজুহাতে বেশ কিছুদিন যাবত আমার লিজকৃত জমি জবর দখল করার পাঁয়তারা চালিয়ে আসছে।
তিনি আরও বলেনঃ মাসুদ হাওলাদার (৪৬) সহ লাল মিয়া (৫৫), নাসির উদ্দিন (৫০), আবু বক্কর সিদ্দিক (৩২) গন গত ১২/০৫/২২ ইং তারিখ দুপুর অনুমান ২ ঘটিকার সময় তার জমিতে যাওয়ার পথে জিপার গলিতে আমার পথরোধ করিয়া অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করে।
আমি প্রতিবাদ করিলে আমার সম্পত্তি জবর দখল, খামারে রক্ষিত ছাগল / ভেড়ার ক্ষতি করা সহ আমাকে প্রাননাশের হুমকি প্রদান করে।
এরা যেকোন সময় জমি মালিকের বড় ধরনের ক্ষয়ক্ষতি করতে পারে বলেও তিনি অভিযোগ করেন ।
এই বিষয়ে মাসুদ হাওলাদার কে জিজ্ঞেস করলে এই বিষয়ে তিনি কোন মন্তব্যে রাজী হননি। এ ব্যাপারে এলাকাবাসী জানান, ঘটনা সত্য, এই জমির মালিক নবাব স্যার সলিমুল্লাহ বাহাদুরের পক্ষে কোট অব ওয়ার্ডস ঢাকা নওয়াব এস্টেটের লীজি মর্তুজা সরকার ( মোস্তাক)। মাসুদ তার বাড়ীর কেয়ারটেকার। ১৯০৮ সন হইতে কোট অব ওয়ার্ডস এ্যাক্ট অনুসারে সরকারের পক্ষে ভূমি সংস্কার বোর্ডের আওতাধীন কোট অব ওয়ার্ডস ঢাকা নওয়াব এস্টেট রক্ষনাবেক্ষন করেন। এবং গরীব লোকজনদের লীজ দিয়ে বসবাস করার সুযোগ দিয়েছে। এবং বৈধ লীজিদের নিকট হইতে বাৎসরিক আবাসিকে লীজ দিয়ে সরকার লীজমানি আদায়ের মাধ্যমে ব্যাপক রাজস্ব অর্জন করছে। বর্তমানে কিছু লোক নবাবের বংশধর পরিচয়ে এই জমি অবৈধ দখলের পাঁয়তারা করছে। অবৈধ দখলদাররা সরকারের রাজস্ব আদায়ে বিঘ্ন সৃষ্টিকারী। এলাকাবাসী অবৈধ দখলদারদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সরকারের প্রতি জোর দাবী জানান।
এ বিষয়ে উক্ত জমি, বসতবাড়ী ও খামার মালিক মর্তুজা সরকার গত ১৫/০৫/২২ ইং তারিখ আশুলিয়া থানায় একটি সাধারণ ডাইরি করে যার নং (১১৮৪)।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।